রমনা কালী মন্দির

একসময় ঢাকায় রমনা এলাকায় ছিল দশনামী গোত্রের হিন্দুদের একটি মন্দির। সুউচ্চ চূড়া বিশিষ্ট এই মন্দিরটি আকারে খুব বেশি বড় ছিল না। ১২টি সিঁড়ি বেয়ে মন্দিরের বারান্দায় উঠতে হত। এ বারান্দার মধ্যখানে কাঠের সিংহাসনে স্থান পেত লাল পাড়ের শাড়ী পরিহিত স্বর্ণ মনি-মুক্তার অলঙ্কারে ভূষিত কষ্ঠি পাথরের কালিক ও ভদ্র কালি মূর্তি।

ঢাকেশ্বরী মন্দির

সলিমুল্লাহ হল থেকে প্রায় ৬০০ গজ দক্ষিণ-পশ্চিমে বর্তমান ঢাকার বকশিবাজার এলাকায় ঢাকেশ্বরী মন্দিরের অবস্থান। ধারণা করা হয়, এটিই ঢাকার আদি ও প্রথম মন্দির। সনাতন হিন্দু ধর্মালম্বীরা মনে করে, ঢাকেশ্বরী থেকেই ঢাকা নামের উৎপত্তি। ঢাকেশ্বরী দেবী ঢাকা অধিষ্ঠাত্রী বা পৃষ্ঠপোষক দেবী।

ঢাকার অর্থনৈতিক অবস্থা

জলপথে যোগাযোগের বিশেষ সুবিধা থাকায় আদিকাল থেকেই ঢাকার বিশেষ বাণিজ্যিক গুরুত্ব ছিল। সতের শতকে ঢাকা মোগল বাংলার রাজধানী হওয়ায় এর রাজনৈতিক গুরুত্বও বাড়তে শুরু করে। রাজনৈতিক গুরুত্ব বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ঢাকার বাণিজ্যিক পরিধিও ছড়িয়ে পরে বহুদূর পর্যন্ত।

ঢাকার শাসক

চারশ বছর পূর্বে ঢাকাকে সুবা বাংলার মোগল রাজধানী হিসেবে ঘোষণা করার পরে আরো তিনবার সহ মোট চারবার ঢাকা শহর অত্র অঞ্চলের রাজধানী শহর হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। পৃথিবীর নানা দেশ থেকে আগত শাসকরা ইতিহাসের বিভিন্ন সময় তুলে নিয়েছে এই শাসনের দায়িত্ব। কেউ কেউ শাসকের দায়িত্ব নিয়ে এ শহরে আসলেও অনেকেই এ শহরে এসে হয়ে ওঠেছেন শাসক।

ঢাকার চিকিৎসাব্যবস্থা

ইতিহাসের পাতায় দেখা যায় একসময় ঢাকাবাসীকে নিয়মিত ভুগতে হত ম্যালেরিয়া, কলেরা, আমাশয়, টাইফয়েড, গুটি বসন্তের মত সব মারাত্মক অসুখ-বিসুখে। এ সকল ব্যাধি মাঝেমাঝেই আকার নিত মহামারিতে।

ঢাকার নামকরণ

প্রাক-মোগল যুগে ঢাকার অস্তিত্ব থাকলেও মূলত মোগল যুগে ঢাকা রাজনৈতিক গুরুত্ব লাভ করে। মোগল-পূর্ব ঢাকা সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানা যায় না। তবে ঢাকার বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা সুলতানী শাসনামলের স্থাপত্য প্রমাণ করে প্রাক-মোগলকালে ঢাকা একেবারে বিরানভূমি ছিল না। তবে স্থাপত্যগুলো সবই ধর্মীয় উপসনামূলক হওয়ায় সে সময় ঢাকার কোন রাজনৈতিক গুরুত্ব ছিল কিনা তা নিশ্চিত করে বলা কঠিন।

এই শহর নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে যে তথ্য-উপাত্ত্য সংগ্রহ করেছি গত এক দশকের বেশি সময় ধরে তা নিয়ে কিছু একটা করবার ইচ্ছে ছিল বহুদিন ধরেই। নানা…

error: Content is protected !!