রমনা কালী মন্দির

একসময় ঢাকায় রমনা এলাকায় ছিল দশনামী গোত্রের হিন্দুদের একটি মন্দির। সুউচ্চ চূড়া বিশিষ্ট এই মন্দিরটি আকারে খুব বেশি বড় ছিল না। ১২টি সিঁড়ি বেয়ে মন্দিরের বারান্দায় উঠতে হত। এ বারান্দার মধ্যখানে কাঠের সিংহাসনে স্থান পেত লাল পাড়ের শাড়ী পরিহিত স্বর্ণ মনি-মুক্তার অলঙ্কারে ভূষিত কষ্ঠি পাথরের কালিক ও ভদ্র কালি মূর্তি।

ঢাকেশ্বরী মন্দির

সলিমুল্লাহ হল থেকে প্রায় ৬০০ গজ দক্ষিণ-পশ্চিমে বর্তমান ঢাকার বকশিবাজার এলাকায় ঢাকেশ্বরী মন্দিরের অবস্থান। ধারণা করা হয়, এটিই ঢাকার আদি ও প্রথম মন্দির। সনাতন হিন্দু ধর্মালম্বীরা মনে করে, ঢাকেশ্বরী থেকেই ঢাকা নামের উৎপত্তি। ঢাকেশ্বরী দেবী ঢাকা অধিষ্ঠাত্রী বা পৃষ্ঠপোষক দেবী।

ঢাকার মন্দির

ঢাকার সিভিল সার্জন জেমস টেলর তার টাইপোগ্রাফি অব ঢাকা (১৮৪০) গ্রন্থে উল্লেখ করেন, ঢাকা শহরের হিন্দুদের ধর্মকর্মের স্থানগুলো হল- ৫২টি আখড়া, ৫৫টি কালীবাড়ি ও ১২টি স্নান ঘাট। ঢাকেশ্বরী দুর্গা মন্দিরের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্রাহ্মণদের সংখ্যা ছিল ১৮ জন এবং যারা যজমানী অনুষ্ঠানাদি সম্পন্ন করেন ১৮৩৮ সালে তাদের সংখ্যা ছিল ৩৪৫ জন। প্রফেসার রংগলাল সেনের ঢাকায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও দাঙ্গা-হাঙ্গামা প্রবন্ধ থেকে জানা যায় ১৮৪০ সালে ঢাকায় ১৯৯টি মন্দির ছিল।

এই শহর নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে যে তথ্য-উপাত্ত্য সংগ্রহ করেছি গত এক দশকের বেশি সময় ধরে তা নিয়ে কিছু একটা করবার ইচ্ছে ছিল বহুদিন ধরেই। নানা…

error: Content is protected !!