ঢাকার রুটি-পরটা

পরবর্তীতে লাল পরটা নামের পরিচিত এক ধরনের শক্ত পরটার প্রচলন শুরু হয়। লাল পরটা খাওয়া হতো বুন্দিয়ার সঙ্গে। লুচি সাদৃশ্য আরেক ধরনের পরটা পাওয়া যেত মিষ্টান্ন বিক্রেতাদের কাছে। এই পরটা স্থানীয়ভাবে পরিচিত ছিল রীলের পরটা নামে। বুন্দিয়া, কিমা ভরেও রীলের পরটা বিক্রি করা হতো। তবে কিমা ভরা পরটা শুধু রমজান মাস-এ (আরবি মাস) পাওয়া যেত।